সারারাত ঘুমালেন, তারপরও ক্লান্তি, কী করবেন ?

https://news3.com.bd/wp-content/uploads/2020/10/ক্লান্ত-লাগছে.jpg
ক্লান্ত লাগছে

সারারাত ঘুমালেন, সকালটা হওয়ার কথা ফুরফুরে। কিন্তু না, দেখলেন ক্লান্ত লাগছে। কোনো কাজে উৎসাহ পাছেন না। গা-হাত পায়ে ব্যথা। এমনকি  কোমরেও। কিন্তু এমন তো হওয়ার কথা নয়! কেন এত ক্লান্ত লাগছে  হচ্ছে এমন ?

শরীর সঠিক খাবার পাচ্ছে না

পুষ্টিবিদদের মতে, সকালে এমন হলে (ক্লান্ত লাগল) বুঝতে হবে শরীর সঠিক খাবার পাচ্ছে না। আপনি হয়তো ভাবছেন, সবই তো খাচ্ছি তাহলে ঘাটতি টা কোথায় ? সমস্যা হচ্ছে- আপনি নিয়ম মেনে সারাদিন পুষ্টিকর খাবার খেলেন, কিন্তু ব্রেকফাস্টে এমন কিছু খেলেন যাতে দেখা গেল সঠিক পুষ্টিই নেই । আর সে জন্যই এই ক্লান্তিভাব।

সকালে সঠিক খাওয়া না হলে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে। তাই অন্যসময় যতই ভালো খাবার খাওয়া হোক না কেন শরীর দুর্বল লাগে। তাহলে কী খাবেন সকালে ?

 সকালের খাবার তালিকায় কী কী রাখবেন

  • সকালে কোনো প্রসেসসড খাবার খাবেন না । প্রাকৃতিক খাবারেই শুরু করুণ দিন। সোডিয়াম, ট্রান্স ফ্যাট থাকে এরকম কোনো খাবার সকালে উঠে খাবেন না। এছাড়াও ক্যান ফুড ও প্যাকেট করা কোনো খাবরও খাবেন না।
  • প্রতিদিন সকালে অন্তত একটা ফল খান। যে ঋতুতে যে ফল পাওয়া যায় তাই খান। এসব ফলেই তৈরি করে রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা।
  • সকালে দুধ চিনি দিয়ে কফি কিংবা চা খাবেন না । এতে শরীরে ক্লান্তি আসে। শরীর সঠিক পুষ্টি পায় না।এজন্য নানারকম সমস্যা হতে পারে ।
  • সকালে উঠেই মাছ, মাংস কিংবা টার্কি জাতীয় কোনো খাবার খাবেন না। এসব খাদ্যে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে। এছাড়াও থাকে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড। ফলে সকালেই এতটা পরিমাণ প্রোটিন খাওয়া ঠিক হবেনা । ময়দা দিয়ে তৈরি খাবারও  সকালে এড়িয়ে চলুন।

 ফাইবার আছে এমন খাবার বেশি করে খান

ফাইবার আছে সকালে এমন খাবার বেশি করে খান। ওটস, কর্নফ্লেক্স এসব খেতে পারলে । খাদ্য তালিকায় রাখুন চিয়া সিডস, ফ্লেক্স সিডস জাতীয় খাদ্য ।এসবও খেলে  হার্ট ভালো থাকবে।

সকালেও যদি  ঘুম পায় ক্লান্ত লাগে তাহলে একমুঠো বাদাম খান।্লেদেখবেন ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে। ভেজানো বাদাম, কাজু বাদাম, আমন্ড, আখরোট এসব খেতে পারেন। এসব খাদ্য শরীরকে অনেক শক্তি যোগায়।

পানির চেয়ে ভালো কিছুই নেই। তাই পারলে লেবু ও  মধু দিয়ে মিশ্রিত পানি খান, না হলে শুধু পানি পান করুণ । কারণ শরীরে পানির অনেক প্রয়োজন। তবে ক্লান্তি লাগলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। #