শীতে ত্বক উজ্জ্বল রাখবেন কী ভাবে ?

শীতে ত্বক উজ্জ্বল রাখবেন কী ভাবে ?

নিউজথ্রি  :: সকলের কাম্য সুন্দর ত্বক। কিন্তু শীতকালে ত্বক তো শুষ্ক হয়ে যায়। যত্ন নেওয়ার পরও নির্জীব দেখায়। তার কারণ পুষ্টির অভাব। ঠিকমতো খাওয়া দাওয়া না করলে,প্রতি দিন ত্বকের  যত্ন  না নিলেও ত্বক শুষ্ক লাগে। তবে কিছু খাবার আছে, যা খেলে শীতেও ত্বক থাকবে উজ্জ্বল।  জেনে নিন সেই খাবারের নাম।

ভিটামিন বি’ এবং ভিটামিন সি’ ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ ওয়ালনাট খাবার সঠিক মাত্রায় রক্ত চলাচলে সাহায্য করে।সেইসাথে এই উপাদানগুলো একত্রে অকালবার্ধক্য থেকে ত্বককে সুরক্ষিত রাখে। এর মধ্যে রয়েছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড যা ত্বককে সুরক্ষা করে।

ভিটামিন সি, ত্বকের জন্য খুবই উপকারী একটি উপাদান।  আপেলে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন সি, যা খাওয়া স্বাস্থ্যকর। আপেল ত্বকের বলিরেখা কমাতে সাহায্য করে। সেই সাথে খেতে পারেন কমলালেবু ও গাজর। এ দুটিও  ত্বকের জন্য উপকারী।

খেতে পারেন পালংশাক। পালংশাকে রয়েছে ফাইটোনিউট্রিয়েন্স যা সূর্যের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে ত্বককে রক্ষা করে। এছাড়া এর মধ্যে রয়েছে বেটা ক্যারোটিন ও লুটেইন। এই উপাদানগুলো ত্বককে বিভিন্নভাবে সুরক্ষা প্রদান করে। প্রদাহরোধী উপাদান রয়েছে পালংশ‍্যেছ। এটি শরীর থেকে দূষিত পদার্থ বের করে ত্বককে পরিষ্কার ও উজ্জ্বল করে।

অকালবার্ধক্য রোধ করতে ওয়ালনাট খুবই উপকারী খাদ্য উপাদান। এর মধ্যে রয়েছে ভিটামিন এ’ ও সি’ যা ত্বকের বলিরেখা দূর করে ত্বককে নরম রাখতে সাহায্য করে।

খান সবুজ চা, যা শুধু শরীরের পক্ষেই নয়, ত্বকের জন্যও খুব উপকারী। এর অ্যান্টি-এজিং, অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট ত্বকে বলিরেখা পড়তে দেয় না।

কাঠবাদামের দুধ ত্বকের সুরক্ষায় বিশেষ ভূমিকা রাখে । এর মধ্যে থাকা ভিটামিন ই’ ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ত্বককে ভালো রাখতে উপকারী।

খেতে পারেন  ব্রোকলি। এতে থাকে প্রচুর  ভিটামিন সি, ই এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। ভিটামিন সি ও ই ত্বকে গভীর থেকে পুষ্টি যোগায়। ভিটামিন ই সূর্যের অতি বেগুনী রশ্মির ক্ষতি থেকে ত্বককে সুরক্ষা দেয়।

পানির অপ্র নাম জীবন। তাই পানি খান। প্রতিদিন অন্তত দেড় থেকে দুই লিটার পানি বা পানি যুক্ত খাদ্য খেতে হবে। পানি শরীর থেকে বিষাক্ত উপাদান ঘামের মাধ্যমে বের করে দেয়। প্রয়োজনমত পানি খেলে ত্বকের কোষে পানি পৌঁছে যায়, তাতে ত্বক সজীব দেখায়। পরিমিত পানি খেলে ব্রণের উপদ্রবও কমে যায়।

কুমড়া রান্না করার আগে বীজগুলো ফেলে দেবেন না। সেগুলো অত্যন্ত উপকারী এবং ত্বকের জন্য ভালো। মিষ্টি কুমড়ার বীজে প্রচুর পরিমাণে জিঙ্ক থাকে। জিঙ্ক ত্বকের কোষগুলোকে সজীব করে এবং ভেতর থেকে পুষ্টি যোগায়। তাই নিয়মিত কুমড়ার বীজ খান।  কুমড়ার বীজ কড়াইয়ে হালকা ভাজি করে খোসা ছাড়িয়ে খেতে হবে।