বিশ্বের বাড়ছে লকডাউনবিরোধী বিক্ষোভ

ইতালিতে ‘গ্রিন পাস’ এর ‍বিরুদ্ধে বিক্ষোভকারী বিক্ষোভ করেছেন। রোম, নাপলি, তুরিনে হাজার হাজার মানুষ বিক্ষোভ করেছে। তারাও ‘স্বাধীনতা’ বলে স্লোগান দিতে থাকেন। ‘স্বৈরাচারের পতন হোক’ বলেও তারা স্লোগান দিতে থাকেন। বিক্ষোভকারীদের অনেকের মুখেই মাস্ক ছিল না। আগামী মাস থেকে ইতালিতে বাইরে চলাচললের জন্য স্বাস্থ্য সনদ বা ‘গ্রিন পাস’ লাগবে। এটি না থাকলে তিনি রেস্টুরেন্ট, সিনেমা সহ উন্মুক্ত জায়গাগুলোতে প্রবেশ করতে পারবেন না। লন্ডনেও হাজারো মানুষ বিক্ষোভ করেছে। তারা বলছে যে, তাদের নাগরিক অধিকারকে খর্ব করা হচ্ছে। যুক্তরাজ্যের বিক্ষোভকারীরা বলছেন, সরকারের ‘ট্র্যাক অ্যান্ড ট্রেস অ্যাপ’ তাদের চলাচলকে সীমিত করছে। ইংল্যান্ডে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত অধিকাংশ নিয়মাবলী তুলে দেয়ার পর যুক্তরাজ্যে এই বিক্ষোভ শুরু হলো। এদিকে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে লকডাউনবিরোধী বিক্ষোভে পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষ হয়েছে। অনেককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। লন্ডন স্কুল অব হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিকাল মেডিসিনের অধ্যাপক হেইডি লারসন বলেছেন, ‘স্বাস্থ্য সনদের অনেক গুরুত্বপূর্ণ রয়েছে। যারা স্বাধীনতার কথা বলছেন ভ্যাকসিন তাদের ভিন্ন রকমের স্বাধীনতা দিতে পারে।’
ইতালিতে ‘গ্রিন পাস’ এর ‍বিরুদ্ধে বিক্ষোভকারী বিক্ষোভ করেছেন। রোম, নাপলি, তুরিনে হাজার হাজার মানুষ বিক্ষোভ করেছে। তারাও ‘স্বাধীনতা’ বলে স্লোগান দিতে থাকেন। ‘স্বৈরাচারের পতন হোক’ বলেও তারা স্লোগান দিতে থাকেন। বিক্ষোভকারীদের অনেকের মুখেই মাস্ক ছিল না। আগামী মাস থেকে ইতালিতে বাইরে চলাচললের জন্য স্বাস্থ্য সনদ বা ‘গ্রিন পাস’ লাগবে। এটি না থাকলে তিনি রেস্টুরেন্ট, সিনেমা সহ উন্মুক্ত জায়গাগুলোতে প্রবেশ করতে পারবেন না। লন্ডনেও হাজারো মানুষ বিক্ষোভ করেছে। তারা বলছে যে, তাদের নাগরিক অধিকারকে খর্ব করা হচ্ছে। যুক্তরাজ্যের বিক্ষোভকারীরা বলছেন, সরকারের ‘ট্র্যাক অ্যান্ড ট্রেস অ্যাপ’ তাদের চলাচলকে সীমিত করছে। ইংল্যান্ডে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত অধিকাংশ নিয়মাবলী তুলে দেয়ার পর যুক্তরাজ্যে এই বিক্ষোভ শুরু হলো। এদিকে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে লকডাউনবিরোধী বিক্ষোভে পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষ হয়েছে। অনেককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। লন্ডন স্কুল অব হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিকাল মেডিসিনের অধ্যাপক হেইডি লারসন বলেছেন, ‘স্বাস্থ্য সনদের অনেক গুরুত্বপূর্ণ রয়েছে। যারা স্বাধীনতার কথা বলছেন ভ্যাকসিন তাদের ভিন্ন রকমের স্বাধীনতা দিতে পারে।’

নিউজথ্রি :: ফ্রান্স, ইতালি, অস্ট্রেলিয়া সহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে হাজার হাজার মানুষ লকডাউনবিরোধী বিক্ষোভে নেমেছে। ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার গ্যাস ও জলকামান ব্যবহার করেছে পুলিশ। সূত্র: আল জাজিরা।

ফ্রান্সজুড়ে হেলথ পাসের বিরুদ্ধে প্রায় এক লাখ ৬০ হাজার মানুষ বিক্ষোভে নেমেছে। এই হেলথ পাস অনুযায়ী, যারা ভ্যাকসিন নেয়নি তারা রেস্টুরেন্ট ও সর্বসাধারণের চলাচলের জায়গায় প্রবেশ করতে পারবেন না। বিক্ষোভকারীরা ‘স্বাধীনতা, স্বাধীনতা’ বলে স্লোগান দিতে থাকেন।

ইতালিতে ‘গ্রিন পাস’ এর ‍বিরুদ্ধে বিক্ষোভকারী বিক্ষোভ করেছেন। রোম, নাপলি, তুরিনে হাজার হাজার মানুষ বিক্ষোভ করেছে। তারাও ‘স্বাধীনতা’ বলে স্লোগান দিতে থাকেন। ‘স্বৈরাচারের পতন হোক’ বলেও তারা স্লোগান দিতে থাকেন। বিক্ষোভকারীদের অনেকের মুখেই মাস্ক ছিল না।

আগামী মাস থেকে ইতালিতে বাইরে চলাচললের জন্য স্বাস্থ্য সনদ বা ‘গ্রিন পাস’ লাগবে। এটি না থাকলে তিনি রেস্টুরেন্ট, সিনেমা সহ উন্মুক্ত জায়গাগুলোতে প্রবেশ করতে পারবেন না।

লন্ডনেও হাজারো মানুষ বিক্ষোভ করেছে। তারা বলছে যে, তাদের নাগরিক অধিকারকে খর্ব করা হচ্ছে। যুক্তরাজ্যের বিক্ষোভকারীরা বলছেন, সরকারের ‘ট্র্যাক অ্যান্ড ট্রেস অ্যাপ’ তাদের চলাচলকে সীমিত করছে। ইংল্যান্ডে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত অধিকাংশ নিয়মাবলী তুলে দেয়ার পর যুক্তরাজ্যে এই বিক্ষোভ শুরু হলো।

এদিকে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে লকডাউনবিরোধী বিক্ষোভে পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষ হয়েছে। অনেককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। লন্ডন স্কুল অব হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিকাল মেডিসিনের অধ্যাপক হেইডি লারসন বলেছেন, ‘স্বাস্থ্য সনদের অনেক গুরুত্বপূর্ণ রয়েছে। যারা স্বাধীনতার কথা বলছেন ভ্যাকসিন তাদের ভিন্ন রকমের স্বাধীনতা দিতে পারে।’ #