গরমে চাই আরামদায়ক পোশাক

গরমে ছোটদের পোশাক
গরমে ছোটদের পোশাক

এই গরমে পোশাক হওয়া চাই আরামদায়ক। কারণ গরমকাল বলে আমাদের বাইরে ছোটাছুটি কিন্তু বন্ধ থাকে না। আর এইসময় পোশাক যদি আরামদায়ক না হয় তাহলে খুব অস্বস্তি হয় আর এর প্রভাব পড়তে পারে আপনার কাজের ওপর। তাই গরমের এই কালে পোশাক হওয়া উচিত স্বস্তিদায়ক।

গরমে আরামের পোশাক হিসেবে সুতি কাপড়ের তুলনা হয় না। সুতি কাপড়ের তৈরি পোশাক শরীরকে ঠান্ডা রাখে। গরমে কালো কাপড় এড়িয়ে চলা উচিত, কারণ কালো রঙের তাপ শোষণ ক্ষমতা বেশি। এ ছাড়া হালকা রঙের সুতি পোশাক রোদ ও তাপ থেকে বাঁচিয়ে শরীরকে স্বস্তি দেয়।

গরমে আমাদের অনেকেরই চুলকানি, ঘামাচি, অ্যালার্জির মতো সমস্যা দেখা দেয় বা শরীরে ফুসকুঁড়ি ওঠে। এ সময়টা সুতি কাপড়ই পরা উচিত। যাদের স্বাস্থ্য ভারী অথবা অত্যধিক গরম পরিবেশে কাজ করেন, তারা সুতি কাপড়ের তৈরি কামিজ ব্যবহার করতে পারেন।

স্কুল-কলেজ, ইউনিভার্সিটির মেয়েরা, যাদের প্রতিনিয়ত বাইরে যাওয়া-আসা করতে হয়, ক্লাস করতে হয়, তারা এই গরমে সুতির সালোয়ার-কামিজ এবং ফতুয়া ও জিন্স ব্যবহার করতে পারেন। আর যারা শাড়ি পরতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন তারা এই গরমে সুতির হালকা রঙের শাড়ি, টাঙ্গাইলের শাড়ি অথবা বল্ক-বাটিকের সুতি ট্রেন্ডি শাড়ি বেছে নিতে পারেন। সেই সঙ্গে গরম থেকে স্বস্তি পেতে আপনি নির্ভর করতে পারেন চিরন্তন রঙ সাদার ওপর।

সাদা কাপড় হলেও গরমের কাপড় হিসেবে সুতি কাপড়ে প্রাধান্য দিন বেশি। কারণ সুতি কাপড়েই গরমে সবচেয়ে আরাম এবং স্বস্তি পাওয়া যায়। লম্বায় খুব বড় বা অনেক বেশি কাপড় দিয়ে তৈরি জামাকাপড় গরমে ত্যাগ করুন। এতে আপনার চলাফেরায় সমস্যা হবে। জায়গা বুঝে কাপড় নির্বাচন করতে হবে। খুব বেশি চলাফেরা করতে হলে সুতির তৈরি পোশাক না পরাই ভালো। তাড়াতাড়ি কুঁচকে যাবে। এ ক্ষেত্রে লিনেন কাপড় বেছে নিতে পারেন। দিনের বেলায় হালকা হলুদ, হালকা গোলাপি, বিভিন্ন শেডের প্যাস্টেল রঙগুলো দেখতে ভালো লাগবে।#