কিভাবে রোধ করবেন কলার পঁচন?

১) কলা ঝুলিয়ে রাখুন – কলা গাছ থেকে আলাদা করার পরেই পাকা শুরু করে৷ গাছ থেকে আলাদা হওয়ার পরেই কলা ইথিলিন গ্যাস ছেড়ে দিতে শুরু করে। তবে কলা ঝুলিয়ে রাখলে অনেকটা ধীর গতিতে পাকে। এছাড়াও কলা ঝুলিয়ে রাখলে আপনার আলাদা করে কোনো পাত্র বা জায়গার চিন্তাও করতে হয় না এগুলো রাখার জন্যে। আপনি চাইলে কলা ঝুলানোর জন্যে নিজেই ব্যবস্থা করতে পারেন। তবে বাজারে এখন অনেক ধরনের “ব্যানানা হ্যাঙ্গার” পাওয়া যায় যা অনেকটা সহজলভ্যও বটে।

সবুজ দেখে কলা ক্রয় করুন – আমরা সাধারণত দোকানে গেলে সবুজ ধরনের কলাগুলো না কিনে হলুদ কলা কিনে থাকি। তবে হলুদ কলা গুলো তাৎক্ষণিক ভাবে দেখতে সুন্দর লাগলেও এগুলো খুব দ্রুতই পঁচে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। অন্যদিকে সবুজ দেখে কলা কিনলে সেগুলো থেকে আমরা ভিন্ন স্বাদও উপভোগ করতে পারি এবং হলুদ কলার তুলনায় বেশ দীর্ঘ সময় ধরে এগুলো ভালো থাকে।

৩) প্লাস্টিকের ফয়েল দিয়ে কান্ড মুড়িয়ে রাখুন – ইথিলিনের কথা হয়ত মনে আছে আপনার। কলার যে কান্ড সেটিই এই ইথিলিন গ্যাস ছেড়ে দেয় যার কারনেই কলা দ্রুত পেকে যায়। আপনি যদি কলাকে দ্রুত পাকা থেকে রোধ করতে চান তবে কলার এই কান্ডটিকে প্লাস্টিকের অথবা অ্যালুমিনিয়ামের ফয়েল দিয়ে মুড়িয়ে রাখুন। তবে প্রতিটি কলাকে কান্ড থেকে আলাদা করে এভাবে পেচিয়ে রাখলে তা আরো বেশি কার্যকরী।

৪) পাকা কলাগুলো ফ্রিজে রাখুন – ফ্রিজে কলা! শুনে হয়তো আপনার অবাক লাগছে বা আগে কখনো ভাবেননি যে এই সুস্বাদু হলুদ ফলটি ফিজে রাখতে হবে। তবে এটি সত্য যে হলুদ পাকা কলা ফ্রিজে রাখলে এর জীবনকাল বৃদ্ধি পায়। তবে কলা সবুজ থাকা অবস্থায় এমনটা না করাই ভালো।

৫) কলাকে জমিয়ে ফেলা – কলা ভালো রাখার আরেকটি উপায় হল ডিপ ফ্রিজে রেখে কলাকে জমিয়ে ফেলা। এক্ষেত্রে প্রক্রিয়াটি হল কলা যখন পরিপক্ক হয়ে যাবে তখন কলার খোসা ফেলে দিয়ে কোন পাত্রে করে কলাকে ডিপ ফ্রিজে রেখে জমিয়ে ফেলা। অতঃপর এই হিমায়িত ফলটিকে আপনি যেকোন সময়ে রেসিপি হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন।

৬) কলার জন্য বক্স কিনুন – আপনি ব্যাগে কলা নিয়ে আপনার কর্মস্থলে গিয়েছেন যে পরে খাবেন। কিন্তু ব্যাগ খুলে দেখলেন কলা ব্যাগের সব জায়গায় মেখে গিয়েছে৷ আর এরকম পরিস্থিতিতে পড়েনি এমন লোক হয়তোবা খুব কমই খুঁজে পাওয়া যাবে। আর এক্ষেত্রেই প্রয়োজন পড়ে কলা রাখার বক্সের৷ কম-বেশি সব বাজারেই আপনি কলা রাখার বক্স পেয়ে যাবেন খুব সহজেই। #

* সৌজন্যে ঢাকা টাইমস