কালীগঞ্জে ক্লিনিক থেকে সদস্য ভুমিষ্ট শিশু চুরি

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি :: ঝিনাইদহের কালীগঞ্জের সেবা ক্লিনিক থেকে সদ্য ভুমিষ্ট এক শিশু কন্যা চুরির ঘটনা ঘটেছে। সোমবার সন্ধ্যায় ক্লিনিকের দ্বিতীয় তলা থেকে অপরিচিত এক নারী শিশুটি কে চুরি করে নিয়ে যায়। শিশুটি কালীগঞ্জ পৌরসভার বলিদাপাড়া গ্রামের ইজিবাইক চালক মনিরুল ইসলামের সন্তান। বাচ্চাটি হারিয়ে যাওয়ার পর স্বজনরা বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠে।
চুরি হয়ে যাওয়া শিশুর বাবা মনিরুল ইসলাম জানান, সোমবার সকালে তার স্ত্রী সাবানা বেগমের প্রসব যন্ত্রনা শুরু হলে কালীগঞ্জ শহরের সেবা ক্লিনিকে ভর্তি করেন। দুপুর আড়াইটার দিকে সিজারের মাধ্যমে কন্যা সন্তান ভুমিষ্ট হয়। এরপর ক্লিনিকের ৩নং কেবিনে রাখা হয়। কন্যা ও তার মা সুস্থ ছিল। বিকালে এক অপরিচিত মহিলা এসে আমার বাচ্চাকে কোলে নিয়ে আদর করে এবং বিভিন্ন ধরনের গল্প করতে থাকে। এরপর মহিলাটি ক্লিনিকের রিসিভশনে বসে ছিল। ইফতার শেষে নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় শিশুটির নানী ক্লিনিকের লোক মনে করে অপরিচিত ওই মহিলার কাছে বাচ্চাটি রেখে নামাজ পড়তে গেলে ওই মহিলা বাচ্চাটি নিয়ে পালিয়ে যায়।
শিশুটির চুরি হওয়ার পর ক্লিনিকের মধ্যে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়। শিশুটির মা শাবানা বেগম ও নানী বারবার জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। বড় বোন মরিয়ম (১১) তার ছোট বোনের জন্য কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত শিশুটির কোন সন্ধ্যান পাওয়া যায়নি।
ক্লিনিকের মালিক আব্দুর রশিদ জানান, কন্যা শিশুটি ভুমিষ্ট হওয়ার পর মা ও শিশু দুজনেই সুস্থ ছিল। কিন্তু সন্ধ্যায় ইফতারীর পর শিশুটির নানী অপরিচিত মহিলার কাছে শিশুটিকে রেখে নামাজ পড়তে গেলে সেই মহিলা বাচ্চাটি চুরি করে নিয়ে গেছে। আমি বিষয়টি জানাতে থানায় এসেছি।
কালীগঞ্জ থানার অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মুহাঃ মাহফুজুর রহমান মিয়া বলেন, ক্লিনিক মালিকের কাছ থেকে মৌখিক অভিযোগ পেয়ে এসআই আবুল কাশেমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ফোর্স সেখানে পাঠানো হয়েছে। শিশু কন্যাটি উদ্ধারের জন্য পুলিশ জোরালো অভিযান চালাচ্ছে। #